মাইকেল জেরার্ড টাইসনঃ দ্য বেডেস্ট ম্যান অন দি প্ল্যানেট!

Mike Tyson,মাইক টাইসন


১৯৬৬ সালের ৩০ জুন তারিখে জন্মগ্রহন করেন এই কিংবদন্তি মার্কিন বক্সার, নাম তার মাইকেল জেরার্ড টাইসন। তিনি অবশ্য তার পেশাদারি নামেই বেশি পরিচিত। পৃথিবীর সবাই তাকে এক নামেই চেনে, 'মাইক টাইসন'! তার বর্নাঢ্য ক্যারিয়ারে প্রায় সব কিছুই অর্জন করেন তিনি। যেসকল গুটিকয়েক ব্যাক্তিত্বের ফলে বক্সিং আজ শিল্পে পরিনত হয়েছে, তাদের মধ্যে তিনিও একজন। কিন্তু দিন শেষে সব কিছু ছাপিয়ে, তার নামটাই যেন তার সব থেকে বড় পরিচয়।


১৯৬৬, নিউ ইয়র্কের ব্রুকলিন শহরে জন্ম হয় তার। ছোটবেলা যে তার সুখে কাটে নি তা চোখ বুঝে বলা যায়। তিনি তার বাবার পরিচয় জানতেন না, সার্টিফিকেটের নামটাই শুধু দেখেছিলেন, 'পারসেল টাইসন'। যদিও পরবর্তীতে তার মা 'লোরা মে' কর্তৃক তিনি জানতে পারেন, তার বাবা জিমি কার্লি ক্রিকপ্যাট্রিক নামক কোনো ব্যাক্তি যাকে তিনি কোনোদিনও দেখেননি। টাইসনকে অনেক ছোটবেলাতেই জীবনের অনেক কঠিন সত্যের মুখোমুখি হতে হয়। মাত্র সাত বছর বয়সেই তিনি একজন বৃদ্ধ দ্বারা সেক্সুয়াল হ্যারেজমেন্ট এর স্বীকার হন, পারিবারিক সমস্যার কারনে তাকে চুরি করতে হতো, যদিও তার মা সেগুলো পছন্দ করতেন না। তাছাড়াও তাকে অন্যান্য অনেক সমস্যার মোকাবিলা করতে হয় যা তিনি কখনোই স্পষ্টভাবে খুলে বলেন নি।


মাইক টাইসন যখন ছোট ছিলেন, তিনি আরেক কিংবদন্তি বক্সার 'মোহাম্মদ আলি'র অনেক বড় ভক্ত ছিলেন। মোহাম্মদ আলি-র জীবনী নিয়ে তৈরি "দ্যা গ্রেটেস্ট" চলচ্চিত্রটি দেখার পর থেকেই টাইসন তার পরম ভক্ত হয়ে যান এবং তার মতো হওয়ার ইচ্ছা পোষন করেন। অনেক সাধনার পর, অবশেষে ১৯৮৫ সালের ৬ই মার্চ তিনি প্রথমবার বক্সিং রিংয়ে পা রাখেন। সেখান থেকেই তার 'কিংবদন্তি' হওয়ার পথে যাত্রা শুরু হয়। সেই যাত্রায়, ৬ ফুট উচ্চতার টাইসন, প্রায় ৫৮ টি ফাইটে অংশ নেন। সেগুলোর মধ্যে তিনি ৫০ টি ম্যাচে জয়লাভ করেন (যার ৪৪টিই ছিলো নক-আউটের মাধ্যমে), ৬টি ম্যাচে পরাজিত হন এবং অন্য দুটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় নি।


মাইক টাইসন তার পুরো ক্যারিয়ার জুড়েই বিভিন্ন কন্ট্রোভার্সিতে জড়িয়ে ছিলেন। সেগুলো নিয়ে তার উপর কম আঙুল তোলা হয় নি। অনেক ক্ষেত্রেই তাকে কড়া মাশুলও গুনতে হয়েছে। ১৯৯২ সালে, আমেরিকান এক কিশোরী, 'বিউটি কুইন' কে ধর্ষণের অভিযোগ উঠে টাইসনের উপর। যার ফলে তার ৩ বছরের কারাদণ্ড হয়। ঐ সময়টাতে তিনি ইসলাম ধর্মের উপর আকৃষ্ট হয়ে পড়েন। ইসলাম ধর্মের নিয়ম-নীতিতে তার মন ধরে যায়। যার ফলে তিনি পরবর্তীতে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করে একজন 'আল্লাহ'র বান্দায় পরিণত হন।

Mike Tyson,মাইক টাইসন

ব্যাক্তিগত জীবন জুড়ে তিনি একাধিক বিবাহে জড়িত ছিলেন। তার সন্তান সংখ্যা বর্তমানে ৮ জন।অন্যদিকে, পেশাদারি জীবনে তিনি একজন বক্সারের পাশাপাশি একজন প্রো-রেসলারও ছিলেন। বক্সিং ক্যারিয়ারে প্রায় সবগুলো সম্ভাব্য হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়নসশিপ জেতার পর, ২০০৫ সালে তিনি তার বক্সিং ক্যারিয়ারের ইতি টানেন এবং বর্তমানে তিনি একজন প্রোফেশনাল রেসলার হিসেবে কাজ করে চলেছেন।

Post a comment

0 Comments